ক্রিকেটখেলাধুলা

বিপিএলে সেঞ্চুরি করলেন পাকিস্তানের আজম খান

এবারের বিপিএলে প্রথম কয়েকটি ম্যাচ হয়েছে বেশ ম্যাড়মেড়ে। লো স্কোরিং খেলাগুলোয় প্রতিযোগিতাও হয়নি খুব বেশি। তবে চতুর্থ ম্যাচ থেকে রানের দেখা পাচ্ছেন দর্শকরা। এবার ষষ্ঠ ম্যাচে এলো প্রথম সেঞ্চুরিও। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশের এ ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে খেলতে এসে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচেই সেঞ্চুরি করেছেন পাকিস্তানের তরুণ ক্রিকেটার আজম খান। 

মিরপুর শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে সোমবার চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে খুলনা টাইগার্স। শুরু থেকেই স্ট্রাগল করে এগোতে থাকা খুলনা প্রথম  ৪ ওভারে করে মোটে ১২ রান। এরপর আজম খান এসে চিত্রপট বদলে দেন। একাই করেছেন দলের সিংহভাগ রান। ব্যাট হাতে দাপট দেখিয়ে তুলে নেন সেঞ্চুরি। পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার মইন খানের ছেলের এম শতকে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে খুলনার সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৭৮।

বিপিএলের প্রথম সেঞ্চুরিটা দারুণভাবে এসেছে আজমের। ছয় মেরে তিন অঙ্কের ম্যাজিকাল ফিগারে পৌঁছেছেন পাকিস্তানের এ ক্রিকেটার। ৫৮ বলে ১০৯ রানের অপরাজিত ইনিংসে ছয় মেরেছেন ৮টি। চারের মারও কম ছিল না, ৯ বার বাউন্ডারি ছাড়া করেছেন চট্টগ্রামের বোলারদের। 

প্রথম ম্যাচে হেরে আত্মবিশ্বাসটা একটু কমে যাওয়া খুলনার আজ শুরুটা ভালো হয়নি। দলীয় ৫ রানে শারজীল খানের উইকেট হারায় দলটি। ৭ রানের ব্যবধানে অভিষিক্ত হাবিবুর রহমান সোহান ফেরেন ৬ রান করে। ৪ ওভারে রান আসে মোটে ১২।

পঞ্চম ওভার থেকেই চট্টগ্রাম বোলারদের ওপর চড়াও হন আজম। সে ওভারে এক চার ও এক ছয়ে নিজের আগমনী বার্তা জানান দেন। এরপর একে চট্টগ্রামের সব বোলারদেরই তুলোধোনা করেন ডানহাতি এ ব্যাটার। বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল অবশ্য ভালোই সঙ্গ দিয়েছেন আজমকে। দুজনে মিলে গড়েন ৯২ রানের জুটি। 

৩৭ বলে ৪০ রান করে ভিভাসকান্তের বলে আউট হন তামিম। তবে লড়াই ছাড়েননি আজম। শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করে দলকে নিয়ে যান বড় সংগ্রহের দিকে। খুলনার ইনিংসের শেষদিকে ৭ বলে ১০ রানের ইনিংস খেলেছেন সাব্বির রহমান।

এই বিভাগের অন্য খবর

Back to top button