প্রধান খবরসারাদেশস্বাস্থ্য

এইডস ঝুঁকিতে বগুড়াসহ ২৩ জেলা

বাংলাদেশে এইডস রোগী আছেন আনুমানিক ১৪ হাজারের বেশি। এই অনুমিত জনগোষ্ঠীর মধ্যে ৮ হাজার ৭৬১ জন জানতে পেরেছে তাদের শরীরে এইচআইভি/এইডস ভাইরাস রয়েছে।

মোট রোগীর বড় একটি অংশ কক্সবাজারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী। কক্সবাজার জেলায় এইডস রোগী আছে ১ হাজার ৪৫ জন। তাদের মধ্যে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মধ্যে ৮৪৪ রোগী পাওয়া গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এইডস/এসটিডি কর্মসূচির তথ্য অনুসারে, ঢাকা, সিলেট, চট্টগ্রাম, দিনাজপুর, কুমিল্লা, যশোর, মৌলভীবাজার, কক্সবাজার, খুলনা, নারায়ণগঞ্জ, বাগেরহাট, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, চাঁদপুর, সাতক্ষীরা, মুন্সীগঞ্জ, গাজীপুর, পটুয়াখালী, কিশোরগঞ্জ, বগুড়া, রাজশাহী, বরিশাল এবং ময়মনসিংহ জেলায় এ ঘাতক ব্যাধির অধিকমাত্রায় সংক্রমণ দেখা গেছে।

এইচআইভি (হিউম্যান ইমিউনোডেফিসিয়েন্সি ভাইরাস) সংক্রমণ থেকে সৃষ্ট প্রাণঘাতী রোগ এইডস। দেশে শুধু সরকারিভাবে এইডসের চিকিৎসা দেওয়া হয়। সারা দেশে সরকারি ২৭টি চিকিৎসাকেন্দ্র রয়েছে। এর মধ্যে ১১টি অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল থেরাপি (এআরটি) কেন্দ্রে ওষুধসহ চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়। বাকি ১৬ কেন্দ্রে শুধু নমুনা পরীক্ষা হয়। নমুনা পজিটিভ হলে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয় এআরটি কেন্দ্রগুলোতে। এ ১১টি কেন্দ্রে ১২ জন পজিটিভ রোগী কাজ করছে।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে করোনা মহামারীর কারণে গত দুই বছর এইচআইভি/এইডস রোগীর সংখ্যা কমে এসেছে।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বছর রোগী বাড়তে পারে। সূত্র: দেশ রুপান্তর

এই বিভাগের অন্য খবর

Back to top button